যে ধরনের শ্যাম্পু হতে পারে মারাত্মক ক্যান্সারের কারণ

0
249
narayanganjnewslive
সুন্দর চুল পেতে সবাই চায়। তাইতো এর যত্নেও নানা উপায় অবলম্বন করেন। তাছাড়া চুল পরিষ্কার করার জন্য শ্যাম্পু ব্যবহার করেন সবাই। তবে যারা একটু বেশি সচেতন তারা সঠিক পণ্য বাছাইয়ের ক্ষেত্রে কিছু বিষয় খেয়াল করেন। অনেকেই পণ্যের গায়ে থাকা পণ্যটি তৈরিতে ব্যবহৃত উপাদানের বিবরণী পড়ে থাকেন।

তারা অত্যন্ত সতর্কতার সঙ্গে লক্ষ্য করেন, পণ্যটিতে কোনো ক্ষতিকর কেমিকেল ব্যবহার হয়েছে কি না। চুলের যত্নে পারফেক্ট শ্যাম্পু নির্বাচনের ক্ষেত্রে যেমন দেখা হয়, প্যারাবেন ব্যবহার করা হলো কি না। আবার অনেকেই এই বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে খেয়ালই করেন না। যা কি না ভবিষ্যতে আপনার জন্য বড় ধরনের ক্ষতির কারণ হয়ে দেখা দিতে পারে। এমন ক্ষতির হাত থেকে বাঁচতে পণ্যের লেবেল দেখে পণ্য কেনার পরামর্শ দিয়ে থাকেন বিশেষজ্ঞরা।

বর্তমান বাজারে রয়েছে নানান রকম শ্যাম্পুর সমাহার। তার মধ্যে কিছু শ্যাম্পু তৈরিতে ব্যবহার করা হয়ে থাকে প্যারাবেন-এর মতো কেমিকেল, যা আমাদের চুলের সঙ্গে সঙ্গে স্বাস্থ্যের ক্ষতির কারণও হয়ে উঠতে পারে।

প্রসাধনী সামগ্রীর শেলফ-লাইফ যাতে দীর্ঘ হয় সেজন্য প্রিজারভেটিভ হিসেবে প্যারাবেন ব্যবহার করা হয়ে থাকে। বেশকিছু গবেষণায় দেখা গেছে কিছু কিছু প্যারাবেনের চরিত্র অনেকটা ইস্ট্রোজেন হরমোনের মতো। শরীরের স্বাভাবিক ইস্ট্রোজেন হরমোন উৎপাদনের সঙ্গে এই প্যারাবেন প্রতিক্রিয়া ঘটাতে পারে, যার প্রভাবে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গে নানান ধরণের জটিলতা সৃষ্টি হতে পারে।

প্যারাবেনের অতিরিক্ত উপস্থিতি আছে এমন প্রসাধনী ব্যবহারে স্বাস্থ্যগত সমস্যা দেখা দিতে পারে। অবহেলার কারণে যা পরবর্তীতে রূপ নিতে পারে ক্যান্সারে, হতে পারে স্তন ক্যান্সারও। তাই চুলে প্যারাবেনের ক্ষতিকর প্রভাব থেকে মুক্ত থাকতে প্যারাবেন যুক্ত শ্যাম্পুর ব্যবহার পরিহার করাই উত্তম।

এই কারণে বিশেষজ্ঞরা চুলের যত্নে এমন শ্যাম্পু ব্যবহার করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন, যা প্যারাবেন মুক্ত আবার একইসঙ্গে প্রাকৃতিক উপাদানের গুণ সমৃদ্ধ। কেননা প্রাকৃতিক উপাদানে থাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা চুলকে ভেতর থেকে করে মজবুত ও সুন্দর।

প্যারাবেন যুক্ত শ্যাম্পু একইসঙ্গে আপনার চুল ও স্বাস্থ্য উভয়ের জন্যই হয়ে উঠতে পারে ক্ষতিকর। সুতরাং আপনার চুলের সুস্বাস্থ্য ধরে রাখতে হলে প্যারাবেন মুক্ত শ্যাম্পু নির্বাচনের কোনো বিকল্প নেই। কারণ প্রতিষেধকের চেয়ে প্রতিরোধই উত্তম।